Home / লাইফস্টাইল / আমি ২০ বছর যাবৎ মাটিতে পরে থাকা ‘আল্লাহর নাম’ সংগ্রহ করি: হোসনে আরা

আমি ২০ বছর যাবৎ মাটিতে পরে থাকা ‘আল্লাহর নাম’ সংগ্রহ করি: হোসনে আরা

মাটিতে পরে থাকা পোষ্টার, লিফলেট ও হ্যান্ডবিল থেকে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম, আল্লাহ্ আকবর ও আল্লাহ সর্বশ’ক্তিমান সহ পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কুরআনের বিভিন্ন আয়াত এবং আল্লাহর আল্লাহ্ তাআলার বিভিন্ন নাম ছিড়ে দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর যাবৎ সংরক্ষণ করে চলেছেন হোসনে আরা (৪০) নামের এক মহীয়সী না’রী।

জানা যায়, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর শহরের চুনিয়াখালী পাড়ার বাসিন্দা ফুটপাতের কাপড় ব্যাবসায়ী গোলাম মাওলার স্ত্রী হোসনে আরা (৪০) আনুমানিক ২০০০ সাল থেকে আবর্জনা, ড্রেন, নর্দমা, খানাখন্দ ও মাটিতে পড়ে থাকা পোষ্টার, লিফলেট ও হ্যান্ডবিল থেকে আল্লাহর নাম লেখা ও পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন আয়াতের অংশ ছিড়ে নিজের কাছে সংরক্ষণ করে।

পরে সেগুলো নদীতে ফে’লে দেন তিনি। ইতিমধ্যেই ড্রেন ও আবর্জনা থেকে এগুলো সংগ্রহ করার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ইঞ্জিনিয়ার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ নামের এক ব্যক্তির ফেসবুকে পোস্ট ভিত্তিতে দেখা যায় একজন বোরকা পরিহিত না’রী আবর্জনা এবং ড্রেন থেকে কিছু সংগ্রহ করছেন।

পরে সেই না’রীকে জিজ্ঞাসা করা হয় আপনি ড্রেন থেকে কি সংগ্রহ করছেন? উত্তরে না’রীটি পোস্টার থেকে ছিড়ে নেওয়া বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম অংশটি দেখিয়ে বলে এগুলো পবিত্র আয়াত ও লেখা। মাটিতে পরে এসকল আয়াত ও আল্লাহ্ তাআলার নামের অবমাননা হচ্ছে তাই এগুলো দেখে আমার ক’ষ্ট হয়।

তাই আমি প্রায় বিশ বছর যাবৎ শহরের বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে এগুলো সংগ্রহ করি এবং পরে নদীতে ফে’লে দেই। সরেজমিনে চুনিয়াখালী পাড়ার আবু সাঈদের বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন হোসনে আরার ও কার স্বা’মী।

হোসনে আরা জানান, ছোটবেলা থেকেই পারিবারিকভাবে আমি ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করেছি। জ্ঞান হ‌ওয়ার পর থেকেই মাটিতে পরে থাকা পোস্টারে বা অন্যান্য কাগজে আল্লাহর নাম ও পবিত্র কুরআনের আয়াত দেখে মনে ক’ষ্ট অনুভব করতাম। একসময় নিজেই সি’দ্ধান্ত নেই যে আমার চোখে যেগুলো পরবে সেগুলো আমি সংরক্ষণ করবো। আর এখন প্রতিদিন আমি নিজেই এগুলো সংরক্ষণ করতে বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরি।

টানা ৫০ দিন জামাআতে নামাজ পড়ে সাইকেল পেল শি’শু আব্দুল্লাহ!

সাত বছরের শি’শু আব্দুল্লাহ। অসাধারণ এক প্রতিভা। শুধু পুরস্কারই জিতে নেয়নি, জয় করেছে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের হৃদয়।

এ অল্প ব’য়সেই টানা ৫০ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাআতের স’ঙ্গে আদায় করেছে। বড়দের স’ঙ্গে শি’শু আব্দুল্লাহও পুরস্কার হিসেবে জিতে নিয়েছেন একটি বাইসাইকেল।

শুধু তাই নয়, মসজিদ কমিটি আয়োজিত প্রতিযোগিতা ও স্লোগান- ‘এসো বন্ধু নামাজ পড়ি, কুরআন দিয়ে জীবন গড়ি’ স্লোগান স্বার্থক করে তুলেছেন। কারণ ছোট্ট আব্দুল্লাহ যে বাবার স’ঙ্গে নিয়মিত মসজিদে এসে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামআতের স’ঙ্গে পড়েছে।

বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার ও দাঈ আব্দুল হাই মুহাম্মাদ ছাইফুল্লাহ তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এমনই একটি উৎসাহ ও অনুপ্রেরণামূ’লক পোস্ট তুলে ধরেছেন। তার পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

চমৎকার একটি মাহফিলে অসাধারণ কিছু মুহূর্ত

টানা ৪০ দিনে কারও দুই ওয়াক্ত কারও পাঁচ ওয়াক্ত মিস হলেও সাত বছরের শি’শু আব্দুল্লাহ টানা ৫০ দিন এক ওয়াক্ত জামাত মিস করেনি।

তার আব্বা অনুভূতি বলতে গিয়ে তার মায়ের ভুমিকাকে এ ক্ষেত্রে মূ’ল বলেছেন। উৎসাহিত করতে সাইকেল প্রদান করেছে মাহফিল কমিটি।

আমরাও আমাদের এলাকায় এভাবে সালাতে উৎসাহিত করতে পুরস্কার দিতে পারি, মাহফিল আয়োজক কমিটিও নিজেদের প্রো’গ্রামের সাথে এরূপ গঠনমূ’লক কার্যক্রম নিতে পারেন।

আব্দুল্লাহর মা পারলে আপনারও পারা উচিত প্রিয় স’ন্তানের মায়েরা! অন্তত আমাদের স’ন্তানের জন্য নামাজি বানাতে নিজেরাই উদ্যোগী হতে পারি, নাকি?

উল্লেখ্য, কুষ্টিয়া জে’লার কুমারখালীতে একটি ইসলামি প্রতিযোগিতায় ‘জামাআতের স’ঙ্গে নামাজ পড়া’র আয়োজনে অংশগ্রহণকারীদের জন্য চারটি সাইকেলসহ অনেক পুরস্কারের আয়োজন করে। সে অনুষ্ঠানে মাওলানা আব্দুল হাই মুহাম্মাদ সাইফুল্লাহ প্রতিযোগীদের মাঝে সাইকেলসহ অন্যান্য পুরস্কার প্রদান করেন

About admin

Check Also

আবু ত্ব-হার মায়ের কাছে ফোন দিয়ে মুক্তিপণ দাবি

ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ১০ জুন থেকে নিখোঁজ। সঙ্গে রয়েছেন তার সফরসঙ্গী আব্দুল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *