Home / লাইফস্টাইল / প্রেম করে বিয়ের কয়েকদিন পরই আত্মহ’ত্যার চেষ্টা অভিনেত্রীর

প্রেম করে বিয়ের কয়েকদিন পরই আত্মহ’ত্যার চেষ্টা অভিনেত্রীর

দক্ষিণী ছবির কন্নড় অভিনেত্রী চৈত্র কতুর ফিনাইল খেয়ে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেছেন। বৃহস্পতিবার ঘ’টনার পর স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে তাকে।

পু’লিশ সূত্রের বরাতে আ’নন্দাবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, মাত্র কয়েক দিন আগেই ‘বিগ বস’-এর সাবেক প্রতিযোগী চৈত্র কতুর তার দাম্পত্য জীবন শুরু করেন। কিন্তু স্বা’মীর স’ঙ্গে সমস্যার ফলে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেন।

কর্নাটকের কোলারে থাকেন চৈত্র। তার স্বা’মী নাগার্জুনা পেশায় একজন ব্যবসায়ী। গণপতি মন্দিরে দুই পরিবারের উপস্থিতিতে বিয়ে হয়েছিল তাদের। বিয়ের আগে বেশ কিছু বছর প্রেমের সম্প’র্কে ছিলেন চৈত্র ও নাগার্জুনা।

কিন্তু বিয়ের পর জানা যায়, নাগার্জুনা বিয়ে করতে চাননি। চা’পে পড়ে বিয়ে করতে হয়েছিল তাকে।

পু’লিশ সূত্রে আরও জানা গেছে, বিয়েতে সম্মতি ছিল না নাগার্জুনার পরিবারের। বৃহস্পতিবার ফিনাইল খেয়ে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেন চৈত্র। পরে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। আপাতত তার অবস্থা স্থিতিশীল।

লকডাউনে গরীব মানুষ কী খাবেন!

উভ’য় সং’কটে স’রকার অবশেষে লকডাউন দিচ্ছে আগামী ১৪ তারিখ থেকে ৭ দিনের জন্য। এতেই হয়েছে যত বিপত্তি। দীন মজুরী করে খেটে খাওয়া মানুষদের মাঝে বিরাজ করছে চ’রম আ’তঙ্ক। কারণ এটা তাদের রুটি রুজির ব্যাপার। কিন্তু ক’রোনার এই ভ’য়াল গ্রাস থেকে মানুষের জীবন বাঁচানো যেমন স’রকারের দায়িত্ব তেমনি দায়িত্ব তাঁদের খাবারের ব্যবস্থা করা।

চারিদিকে মানুষের মাঝে একটা চা’পা আ’তঙ্ক আর অসন্তোষ দেখা যাচ্ছে। আর এটাকেই পুঁজি করতে চাচ্ছেন তথাকথিত দরিদ্র প্রে’মিক ন’ষ্ট ভ্রষ্ট বামেরা। পেছনে ইন্ধ’ন দিচ্ছে জামায়াত বিএনপি আর অন্যরা। দাবি উঠেছে এসময় গরীব বিশেষ করে হত-দরিদ্র মানুষদের খাবারের ব্যবস্থার বি’ষয়টি। মানে ত্রাণ দেওয়া হবে কি না, সেই বি’ষয়টি। এ ব্যাপারে এখনো স’রকারের পক্ষ থেকে কোন সুস্পষ্ট ঘোষণার কথা হত-দরিদ্র মানুষ জানতে বা বুঝতে পারেন নি।

স’রকারি দল বা ১ দলীয় জটের পক্ষ থেকেও কোন ইঙ্গিত দেওয়া হয়নি যে, তারা কীভাবে হত-দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াবেন এই ক’রোনা ম’হামা’রী কালে।

এনজিও তথা বেস’রকারি সংস্থাগুলোও কোন উচ্চবাচ্য করছে না। ক হবে বা ক করা হবে এই আসন্ন ক’ঠোর লোকডাউনের সময়।

বিভিন্ন কর্পোরেট হাউজগুলো তাঁদের সি এস আর ফাণ্ড থেকে হত-দরিদ্র মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন কি না, তার কোন ঘোষণা নেই। স’রকার তাঁদের বা’ধ্য করতে পারছেন না, কারণ সি এস আর নীতিমালা এখনো চূড়ান্ত হয় নি।

বিভিন্ন এলাকার অভিজ্ঞরা বলছেন যে, খাবারের নিশ্চয়তা না দিতে পারলে মানুষকে ঘরে আ’টকে রাখা কঠিন হবে। কারণ তাঁদের মাঝে ক’রোনা নেই। হেঁটে খাওয়া মানুষের শ’রীরের ইমিউন সিস্টেম অনেক বেশি, তাই তারা করনাকে পরোয়া করেন না। যেমনটি দেখা যায় গ্রামের মানুষদের মাঝে। এর ফোলে ক’রোনা ম’হামা’রীতে আমাদের দেশের শহরগুলোতে মৃ’তের সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যেতে পারে যা আমাদের কল্পনার বাইরে। তাই তারা দিন এনে দিন খাওয়া মানুষের বি’ষয়টি বিবেচনায় নেবার জন্য স’রকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

About admin

Check Also

আবু ত্ব-হার মায়ের কাছে ফোন দিয়ে মুক্তিপণ দাবি

ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ১০ জুন থেকে নিখোঁজ। সঙ্গে রয়েছেন তার সফরসঙ্গী আব্দুল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *